1. ashik@banglardorpon.com.bd : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  2. admin@banglardorpon.com.bd : belal :
  3. firoz@banglarsangbad.com.bd : Firoz Kobir : Firoz Kobir
  4. rubin@wfh.thewolf.club : lavonneportillo :
  5. lima@banglardorpon.com.bd : Khadizatul kobra Lima : Khadizatul kobra Lima
  6. mijan@banglardorpon.com.bd : Mijanur Rahman : Mijanur Rahman
  7. lon@wfh.thewolf.club : roboshaughnessy :
  8. rona@wfh.thewolf.club : waldo43b400667 :
হাজারো নারী স্বাবলম্বী হয়ে ওঠার চিত্র - বাংলার দর্পন
বাংলার দর্পন পরিবারে আপনাকে স্বাগতম...!!!

এখন সময় রাত ১০:৩০ আজ বৃহস্পতিবার, ২২শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৬ই আগস্ট, ২০২০ ইং, ১৫ই জিলহজ্জ, ১৪৪১ হিজরী

সংবাদ শিরোনাম:
লেবাননের রাজধানী বৈরুতে বিস্ফোরণ : নিহত বেড়ে ১৩৫ মহামারী করোনায় যে প্রক্রিয়ায় খোলা হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান করোনায় আক্রান্ত হলেন অভিনেত্রী সানাই ঈদুল আযহা উপলক্ষে বাহাদুরপুরে ভিজি এফ’র চাউল পেলেন ১১৬৩টি পরিবার করোনায় আক্রান্ত নৃত্যশিল্পী জিনাত বরকতুল্লাহ বাহাদুরপুরে আহম্মদ আলী মেমরিয়াল প্রতিবন্ধী স্কুলের শিক্ষার্থীদের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ ঈদুল আযহা উপলক্ষে হাবাসপুরে ভিজি এফ’র চাউল পেলেন ১৯৩৪টি পরিবার কুষ্টিয়ায় র‍্যাব এর বিশেষ অভিযানে পিস্তল, ম্যাগজিন ও গুলিসহ জেড এম সম্রাট আটক কশবামাজাইলের নাদুরিয়াতে লাল রাজার দাম ১ লাখ ২০ হাজার টাকা কুষ্টিয়া জেলার বিভিন্ন জায়গায় চলছে বালি উত্তোলন




হাজারো নারী স্বাবলম্বী হয়ে ওঠার চিত্র

রিপোর্টার
  • সংবাদ সময় : শনিবার, ৪ এপ্রিল, ২০২০
  • ৭৯ বার দেখা হয়েছে

ভবতোষ রায় মনা:
গাইবান্ধায় অতিদরিদ্র ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর দারিদ্রতা হ্রাসকরণ এবং নারী ক্ষমতায়নে নতুন জীবন প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে জেলার ১২’শ নারী নেপিয়ার ও পাকচং জাতের ঘাস চাষ ও গরু মোটাতাজাকরণ করে বিক্রির মাধ্যেমে স্বাবলম্বী হয়েছে। সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ) নামে একটি সংস্থার টেকনিক্যাল সহায়তা ও পরামর্শ পেয়ে জীবনচিত্র পরিবর্তন হয়েছে এসব নারীর। শুধু ১২’শ নারী নয় এ জেলার ৫ উপজেলায় আরো নারীরা আয়-বৃদ্ধিমূলক কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছেন।
জেলার কৃষকরা পারিবারিকভাবে গরু- ছাগল পালন করে থাকলেও বিভিন্ন সময়ে নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে গরু-ছাগল পালনে লাভের চেয়ে লোকসান বেশি হতো। দেখা যেত যে দামে গরু-ছাগল কেনা হয়েছে কয়েক বছর পালনের পরে সেই দামেই বিক্রি করা হয়। এতে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হতো। নারীদের তেমন আগ্রহ ছিল না গরু ছাগল পালনে, অপর দিকে পুরুষরা গরু পালনে বেশি সময় দিতে পারতো না কারণ মাঠ-ঘাটে কাজ কর্ম আবার বাজার সদায়ের জন্য। এভাবে চলতে চলতে ২০১৬ সালে সাঘাটা উপজেলার উল্লাসোনাতলা গ্রামের ৩০জন দরিদ্র নারীকে নিয়ে গঠন করা হয় উল্যাসোনাতলা নতুন জীবন গরু মোটাতাজাকরণ সমবায় সমিতি। সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ)এর সহযোগিতায় গাইবান্ধার ৫টি উপজেলায় গড়ে তোলা হয় ২৯টি নতুন জীবন গরু মোটাতাজাকরণ সমবায় সমিতি। এর পরে সরকারিভাবে সমবায় অধিদপ্তর হতে সমিতি হিসাবে রেজিস্ট্রেশন করে এসডিএফ। এসব সমিতিকে উৎপাদনশীল বিনিয়োগ তহবিল তথা প্রোডাক্টিভ ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড (পিআইএফ) থেকে ১ কোটি ৭৯ লক্ষ টাকা প্রদান করা হয়। এখন গাইবান্ধা জেলায় ১২’শ নারী এই সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ)এর সহযোগিতায় নতুন জীবন গরু মোটাতাজাকরণ সমবায় সমিতির মাধ্যমে স্বাবলম্বী। এ জেলায় ৫৩ বিঘা জমিতে উন্নত জাতের পাকচং এবং নেপিয়ার জাতের ঘাস চাষ করা হয়েছে। এছাড়া ঘাসের পাশাপশি গরুর দানদার খাদ্যের জন্য ৯ বিঘা জমিতে ভুট্টার চাষ করা হয়েছে।
সাঘাটা উপজেলার সাঘাটা উল্যাসোনাতলা নতুন জীবন গরু মোটাতাজাকরণ সমবায় সমিতির সভাপতি আফরোজা বেগম জানান, সমিতির টাকা দিয়ে এক একর জমিতে ঘাস ও ভুট্রা লাগানো হয়েছে। ঘাস গরুকে খাওয়ানোর পরে অতিরিক্ত ঘাস বিক্রি করে সেই টাকা সমিতিতে জমা রাখা হচ্ছে। তিনি আরও জানান, এই সমিতি থেকে লোন নিয়ে গরু ক্রয় করেছি। গরু ক্রয়ের ও বিক্রয়ের পরিবহন খরচ বহন করে সমিতি। আশে পাশের বাজারে গরুর দাম বেশি বা কম হলে দুরের হাটে গিয়ে গরু ক্রয় ও বিক্রয়ের সুবিধা দিয়ে থাকে এই সমিতি।
সাধারণ সম্পাদক রুমী বেগম জানান, গরু পালনের জন্য ক্রয় বা বিক্রির কোন চিন্তা নেই এই সমিতির নারী সদস্যদের। গরুকে খাওয়ানোর জন্য আধুনিক গম-ভুট্রা ভাঙ্গা ও খর কাটা মেশিন আছে। ফলে গরু পালনে কোন বাধা নেই। আগে অনেক কষ্টে সংসার চলতো এখন আর কষ্ট নেই। এসডিএফ তাঁদের সংসারে আশীর্বাদ হয়ে আসে।
এসডিএফ সাঘাটা উপজেলার ১২নং ক্লাষ্টার ফ্যাসিলিটেটর জিল্লুর রহমান জানান, এই সমিতির সদস্যদের গরু পালনে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে সচেতনতা করতে মাসিক মিটিং করে থাকি এবং গরুর যে কোন সমস্যা হলে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পরবর্তী করণীয় সর্ম্পকে অবগত করা হয় সদস্যদের।
জেলা কর্মকর্তা (জীবিকায়ন) মো: রবিউল ইসলাম জানান, গাইবান্ধা জেলার ৫টি উপজেলায় গরু মোটাতাজাকরণ, গাভী পালনের মাধ্যমে দুধ উৎপাদন, সবজি চাষ, মাছ চাষ, ক্ষুদ্র ব্যবস্যা দিয়ে নতুন জীবন প্রকল্প শুরুর কয়েক বছরে সদস্য সংখ্যা ৮৩ হাজারের উপরে। এই সমিতি ঘটনের ফলে সদস্যরা এখন ন্যাযমূলে গরু বিক্রি করতে পারছে, উৎপাদন খরচ কমে গেছে এবং সহজেই বিভিন্ন সেবাপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের নিকট হতে সেবাগ্রহণ করতে পারছে।
জেলা সমন্বয়কারী মো: মাহাবুবুর রশীদ জানান, নারীদের কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষে সারা দেশের ২২ জেলায় ১০ লক্ষ নারীদের নিয়ে কাজ করছে সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ)। গাইবান্ধা জেলায় শুধু নতুন জীবন গরু মোটাতাজাকরণ সমবায় সমিতির মাধ্যমে ২৯টি সমিতিকে ১ কোটি ৭৯ লক্ষ টাকা প্রদান করা হয়েছে। ১২’শ নারী সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন (এসডিএফ) এর সহযোগিতায় নতুন জীবন গরু মোটাতাজাকরণ সমবায় সমিতি মাধ্যমে স্বাবলম্বী হয়েছে।
সাঘাটা উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা: মো: নাজমুল হক বলেন, এসডিএফ সাঘাটা উপজেলার ৫টি ইউনিয়নের নারী উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিস তাদের কারিগরি সহায়তা এবং ভ্যাকসিন থেকে শুরু করে সবধরণের সহযোগিতা করে যাচ্ছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ধরনের আরো খবর



প্রকৌশল সহযোগিতায়: মোঃ বেলাল হোসেন